দিনাজপুরে আবাসিক হোটেলের আড়ালে দেহ ব্যবসার অভিযোগ

দিনাজপুরে আবাসিক হোটেলের আড়ালে দেহ ব্যবসার অভিযোগ

দিনাজপুরের বিরামপুর পৌর শহরের একটি আবাসিক হোটেলের আড়ালে স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে দেহ ব্যবসার করার অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় পুলিশ শুক্রবার গভীর রাতে ওই আবাসিক হোটেলে অভিযান চালিয়ে ৩ কিশোর কিশোরীকে আটক করেছে। পরে অভিভাবকদের মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

 

বিরামপুর থানা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, পৌর শহরের ঢাকা মোড়ে রাজ ভিলাস (আবাসিক হোটেল) নামের একটি আবাসিকে দীর্ঘদিন থেকে স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে দেহ ব্যবসা করে আসছে এমন গোপন সংবাদের ওই আবাসিকে অভিযান চালায় পুলিশ। পরে ওই আবাসিক এর তিনটি কক্ষ থেকে নবম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পড়ুয়া ১৫-১৭ বছরের তিন কিশোর, কিশোরীসহ হোটেলের মালিককে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পরে তাদের অভিভাবককে ডেকে মুচলেকা নিয়ে ওই তিন কিশোর কিশোরীকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।

জানতে চাইলে বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান মনির বলেন, আটককৃতদের পরিবারের লোকদের কাছে মুচলেকা নিয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে। রাজ বিলাস (আবাসিক হোটেল) এর স্বত্ত্বাধিকারী মো. মোরশেদ মানিক পরবর্তীতে ওই হোটেলে এমন কার্যক্রম চালাবে না এমন মুচলেকা দিয়েছেন।

বিরামপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মিথুন সরকার বলেন, শহরের প্রত্যেকটি আবাসিক হোটেলগুলোতে এখন থেকে সিসি ক্যামেরা ব্যবহার বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। যাতে করে এমন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে।

জানতে চাইলে বিরামপুর পৌর মেয়র আলহাজ্ব লিয়াকত আলী সরকার টুটুল বলেন, শহরের মধ্যে প্রায় ১০টির অধিক আবাসিক হোটেল রয়েছে। প্রত্যেকটি আবাসিক হোটেল মালিকগণকে সর্তক করা হবে। তারপরেও যদি কেহ এই অবৈধ্য কাজে জড়িত থাকেন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Source: https://www.kalerkantho.com/online/country-news/2020/06/13/922629

See also  নরসিংদী সার্কিট হাউজের সামনে প্রকাশ্যে চলছে রমরমা দেহ ব্যবসা, প্রশাসনের নিরব ভূমিকা